কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

বর্তমান সরকারের কৃষিতে সাত বছরের সাফল্য (বিএডিসি)

(বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন)
বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) কৃষি মন্ত্রণালয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে কৃষক পর্যায়ে কৃষি উপকরণ ও প্রযুক্তি হস্তান্তরের মাধ্যমে কৃষির উন্নয়নই এ প্রতিষ্ঠানের মূল লক্ষ্য। এ লক্ষ্যে বিএডিসি গুণগত মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ ও সরবরাহ; ভূপরিস্থ ও ভূগর্ভস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং মানসম্পন্ন সার আমদানি ও বিতরণ কার্যক্রমসমূহ বাস্তবায়ন করছে।
প্রতিষ্ঠান গঠনের প্রেক্ষাপট : কৃষকদের নিকট কৃষি উপকরণের সহজপ্রাপ্যতা নিশ্চিতকল্পে এবং দেশের সেচ এলাকা সম্প্রসারণের কাজ ত্বরান্বিত করার জন্য তদানীন্তন পাকিস্তান সরকার ১৯৫৯ সালের ১৬ জুলাই খাদ্য ও কৃষি কমিশন গঠন করে, এ কমিশন দেশের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্য চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন এবং কৃষি উপকরণ কৃষকদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৬১ সালের ১৬ অক্টোবর ৩৭নং অধ্যাদেশ বলে ইস্ট পাকিস্তান এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন (ইপিএডিসি) প্রতিষ্ঠা লাভ করে, যা বর্তমানে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) নামে পরিচিত।
প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য :  কৃষি উপকরণ সরবরাহ ও প্রযুক্তি সহায়তার মাধ্যমে কৃষি উন্নয়ন ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলা।
প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য
১. উচ্চফলনশীল মানসম্পন্ন বীজের উৎপাদন ও সরবরাহ বৃদ্ধি;     
২. খামার এবং চুক্তিবদ্ধ চাষিজোন সম্প্রসারণ, বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ সুবিধাদি বৃদ্ধি, আধুনিকীকরণ এবং শক্তিশালীকরণ;
৩. বীজ প্রযুক্তি হস্তান্তর, বেসরকারি পর্যায়ে বীজ শিল্প উন্নয়নে সহযোগিতা;  
৪. সেচ দক্ষতা ও সেচকৃত এলাকা বৃদ্ধি এবং ফলন পার্থক্য
(Yield Gap) হ্রাস;  
৫. সারের বাফার স্টক সৃজন, গুণগতমান সম্পন্ন সার সরবরাহ, সারের গুণগতমান পরীক্ষার জন্য আধুনিক পরীক্ষাগার স্থাপন;   
৬. জলাবদ্ধতা দূরীকরণ ও ভূপরিস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ।
প্রতিষ্ঠানের মূল কার্যাবলি
১. মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ ও সরবরাহ;
২. নন-ইউরিয়া সার আমদানি, সংরক্ষণ ও সরবরাহ;
৩. সেচ এলাকা সম্প্রসারণ ও সেচ সুবিধা প্রদান।
বিএডিসির সার্বিক কার্যক্রম
দেশের কৃষি উন্নয়নের স্বার্থে সরকার বিএডিসির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকল্প, কর্মসূচি ও কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। বিভিন্ন ফসলের মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন, সংগ্রহ, প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ, চারা ও গুটি কলম তৈরি এবং বিতরণসহ দেশের কৃষকদের আধুনিক বীজ প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় ঘটানোর জন্য এ সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তি হস্তান্তর কার্যক্রম সংস্থার বীজ উইংয়ের মাধ্যমে সম্পাদিত হচ্ছে। আধুনিক সেচ সুবিধা সম্প্রসারণ, ভূপরিস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ, সেচের পানির প্রাপ্যতা ও যথাযথ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে প্রযুক্তি আহরণ ও হস্তান্তরসহ কৃষককে সহায়তা প্রদানের জন্য বিএডিসির ক্ষুদ্র সেচ উইং কাজ করে যাচ্ছে। এর পাশাপাশি মাটির পুষ্টিগুণ, সমতা রক্ষা এবং ফসলের জন্য প্রয়োজনীয় নন-ইউরিয়া সার (টিএসপি এমওপি ও ডিএপি) আমদানি, সংরক্ষণ ও কৃষকদের কাছে বিতরণের জন্য সার ব্যবস্থাপনা উইং কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উপযুক্ত জনবলের জোগান, অভ্যন্তরীণ জনবলকে জনসম্পদে রূপান্তকরণ, প্রতিষ্ঠানের কাজ গতিশীল রাখার জন্য বিধি প্রণয়ন, পরিচালন ও প্রয়োজনীয়  স্থানে আইনি সহায়তা নিশ্চিতকরণ এবং বিএডিসির কর্মকা-ের প্রচার প্রচারণা ইত্যাদি কাজ সংস্থার প্রশাসন উইংয়ের মাধ্যমে সম্পাদিত হয়ে থাকে। সংস্থার যাবতীয় অর্থ, হিসাব ও নিরীক্ষা সংক্রান্ত কার্যক্রম অর্থ উইংয়ের মাধ্যমে সম্পাদিত হয়।
বিগত ৭ বছরে বিএডিসির অর্জন
ক. বীজ সংক্রান্ত অর্জন
বিএডিসি থেকে বিভিন্ন ফসলের মোট ৯.৮০ লাখ মে.টন বীজ সরবরহ করা হয়েছে। ১ হাজার ৪৪৩ মে.টন মসলা জাতীয় ফসল উৎপাদন করা হয়েছে। বীজ সংরক্ষণের জন্য গুদামের ধারণক্ষমতা ১.৪৩ লাখ মে.টন থেকে বৃদ্ধি করে ২.১২ লাখ মে.টনে উন্নত করা হয়েছে। এছাড়া ২টি টিস্যু কালচার ল্যাব, ২টি বীজ বর্ধন খামার, ৩০টি ডিহিউমিডিফাইড স্টোর, ১টি আধুনিক বীজ পরীক্ষাগার, ৩টি ফার্মার্স সিড সেন্টার,  ২টি অটো সিড প্রসেসিং প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে এবং হিমাগারের ধারণক্ষমতা ১৭ হাজার থেকে ২৯ হাজার ২২০ মে.টন বৃদ্ধি করা হয়েছে।
খ. সেচ সংক্রান্ত অর্জন
বিগত সাত বছরে ৭ হাজার ২৯৮ কিলোমিটার খাল পুনঃখনন করা হয়েছে। ২ হাজার ৩১৮ কিলোমিটার ভূপরিস্থ এবং ২ হাজার ১১১ কিলোমিটার ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ করা হয়েছে। ৯৭০টি গভীর নলকূপ স্থাপন এবং ১ হাজার ৫২টি পুনর্বাসন করা হয়েছে। ৩ হাজার ৭৩টি শক্তিচালিত এবং ১১টি সৌরবিদ্যুৎচালিত সেচপাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া ৪টি রাবার ড্যাম, ১৪৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। সেচ অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে ৫ হাজার ৭৬১টি।
গ. সার সংক্রান্ত অর্জন
বিগত সাত বছরে  ৪৫.৪৮ লাখ মে.টন সার আমদানির বিপরীতে  ৪২.৪৭ লাখ মে.টন সার সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া সার গুদামের ধারণক্ষমতা ৯৮ হাজার মে.টন থেকে ১.৫৪ লাখ মে.টন বৃদ্ধি করা হয়েছে।
চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বিএডিসির লক্ষ্যমাত্রা
বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) কর্তৃক চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২০টি প্রকল্প ও ১৪টি কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এসব প্রকল্প ও কর্মসূচির মাধ্যমে কৃষি খাতের অগ্রগতি অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১.৩৯ লাখ মে.টন বীজ উৎপাদন এবং ১.৩৫ লাখ মে.টন বীজ সরবরাহ করা হবে। ৭টি আলু বীজ হিমাগার, ২০টি ডিহিউমিডিফাইড বীজ গুদাম, ২৪৮টি সেচ অবকাঠামো, ১১.২১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ, ৪টি প্রি ফেব্রিকেটেড স্টিল গুদাম, ৫০৮টি বৃষ্টির পানি সংরক্ষণাগার নির্মাণ এবং ১৫টি সারগুদাম মেরামত, ৪৬৮ কিলোমিটার খাল পুনঃখনন,  ৪৪টি পুকুর খনন করা হবে। ৫৫৯.০৪ কিমি. ভূগর্ভস্থ এবং ১৫.২০ কিলোমিটার ভূপরিস্থ সেচনালা তৈরি এবং ৫২,২০০ মিটার ফিতা পাইপ স্থাপন করা হবে। এছাড়া সার সরবরাহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯.৩০ লাখ মে.টন।
দেশের জনগণের দীর্ঘমেয়াদি খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতার টেকসই রূপ দিতে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। খাদ্য উৎপাদনের জন্য মানসম্পন্ন বীজ, সার এবং সেচের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কৃষক পর্যায়ে মানসম্পন্ন বীজ সরবরাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বীজ উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ ও বিতরণ ব্যবস্থা অধুনিকীকরণ সংক্রান্ত কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। আন্তঃরাষ্ট্রীয় চুক্তির আওতায় তিউনিশিয়া, মরক্কো, বেলারুশ, রাশিয়া ও কানাডা   থেকে নন-ইউরিয়া সার আমদানি এবং সেচ এলাকা সম্প্রসারণের মাধ্যমে পতিত জমি আবাদি জমিতে রূপান্তরিত করার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।


*সংকলিত, কৃষি তথ্য সার্ভিস, খামারবাড়ি, ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫


Share with :

Facebook Facebook