কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

কবিতা (ফাল্গুন ১৪২২ কৃষিকথা)

দেখতে যদি চাও
মো. ফরহাদ হোসেন*


আমার বাড়ি, খামার বাড়ি, দেখতে যদি চাও
আড়িয়াল খাঁ নদীর তীরে, চরলক্ষ্মীপুর যাও।
দেখবে হেথা পথের ধারে, নামটি হাজী বাড়ি
দখিন পাশে ফুল বাগিচা, থুজা সারি-সারি।
পুকুর পাড়ে কলা-পেঁপে, কচু কলের পাশে
জলের মাঝে সাঁতার কাটে, রুই কাতলা মাছে।
গোয়াল ঘরে গরু আছে, আরও মুরগি-হাঁস
শিমুল, জারুল, মেহগনি, পশ্চিমে তার বাঁশ।
পুবে আছে আমড়া-ডালিম, আম-চালতা ও লিচু
বছরজুড়ে সব সময়ই, সবজি থাকে কিছু।
বাঁশের ছায়ে আদা-হলুদ, রোদে সবজি-ফল
সার হিসেবে লাগাই কাজে, মুরগি গরুর মল।
আমার বাড়ি, খামার বাড়ি, গাছ-গাছালি যত
ডাকছে তোমায় আপন করে, ডাকছে অবিরত॥


শেষ সম্বল কৃষি
মো. জুন্নুন আলী প্রামানিক**

বেকার আসে কৃষির কাছে চাকরি যখন নাই,
খুঁজিয়ে ফেরে বয়স বাড়ে গন্তব্য কৃষিতে তাই।
কৃষির পাশে দাঁড়িয়ে শেষে হতাশ জীবন কাটে,
আয়ের পথ কঠিন শ্রমে ভাবনা সজীব মাঠে।
নতুন সব লোকের দেখা প্রচুর পাখির গানে,
স্বাগত দিতে কুণ্ঠিত নয় সোহাগ জানায় কানে।
কলম ছেড়ে লাঙল ধরে মাটিকে সালাম দেয়,
শীতল মাটি পরম যত্নে জড়িয়ে কোলায় লয়।
আদর করে সবুজ ঘেরা তরুণ ধানের চারা,
ভুলিয়ে দিতে দুঃখ কষ্ট বিশুদ্ধ বায়ুর সাড়া।
ছুটিয়ে আসে গুছিয়ে দিতে মাথার আউলা চুল,
চলার পথে সহসি হতে থাকে না সন্দেহ ভুল।
হঠাৎ কাজে আদুরে সোনা বাবার মায়ের ধন,
চলতে গিয়ে হোঁচট খেয়ে ভীষণ বেজার মন।
আগের দিন এখন নেই খাটুনি বাড়ায় কাবু,
সম্বল কৃষি উদ্বিগ্ন বেশি বিপাকে শিক্ষিত বাবু।
আয়ের পথ খুঁজতে বাড়ে বয়স বহুত গুণে,
বিবাহ করে সন্তান পায় ঝামেলা দ্বিগুণ প্রাণে।
সঠিকভাবে চলতে বাধা বাঁচার উপায় কৃষি,
সীমিত আয়ে মেটে না ব্যয় নীরব মুখের হাসি।
বিপুল আশা থামিয়ে যায় জমিও অনেক কম,
পিতাও জব্দ মাতাও ক্ষুব্ধ কেউই দেয় না দাম।
বাঁচার জন্য লড়াই চলে বিচিত্র ফসল চাষে,
বইতে পড়া সুপথ গুলে সহায় জানায় এসে।
অজান্তে যে সকল শস্য ফলিয়ে তাহাকে ডাকে,
সকল ব্যথা ঘুঁচিয়ে যায় সময় যাবার ফাঁকে॥

 

আদর্শ চাষি
মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী***

আদর্শ চাষি আদর্শ জ্ঞানের হয়
ফসল আবাদের সব, তার জানা রয়।
আদর্শ পদ্ধতিতে করে জমি চাষ
ফলায় মাঠে দানা শস্য, সবজি, আদা, হলুদ, মাস।
আদর্শ পদ্ধতিতে করে বীজতলা
চারা হয় সুস্থ সবল,
মাঠে করে সুষম সার ব্যবহার
ফলে ফসলের ফলন বাম্পার।     
ধানের জমিতে দেয় পুঁতে পার্চিং
ফিঙ্গে শালিক পাখি ধরে খায় মাঠের পোকা,
কীটনাশক ব্যবহার করে না অযথা।
সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি করে গ্রহণ
কীটনাশকের অযথা ব্যবহার নেই প্রয়োজন।
সবজি জমিতে দেয় ঝুলিয়ে সেক্স ফেরোমন
বিষমুক্ত সবজি খেয়ে সুস্থ দেহ ও মন।
এ ডব্লিউ ডি পদ্ধতিতে বোরো জমিতে দেয় সেচের পানি
জ্বালানি খরচ সাশ্রয় করে, সমৃদ্ধি আনি।
ক্ষেতের আইলে করে সবজি চাষ
গড়ে তোলে বন্ধু পোকার আশ্রয় ও নিবাস।
জৈব সার সঠিক পদ্ধতিতে করে সংরক্ষণ
পুষ্টি গুণে ভরা মাটির স্বাস্থ্য,
ফসলের অধিক ফলন।
মাঠের ফসল নিয়মিত করে পর্যবেক্ষণ
রোগ পোকার আক্রমণ, হয় না যখন তখন।
আদর্শ চাষি আদর্শ জ্ঞানের হয়
ফসল আবাদের আধুনিক কলাকৌশল,
তার জানা রয়॥


*উপজেলা কৃষি অফিসার, কাউখালী, পিরোজপুর; **শিক্ষক (বিএবিএড), গ্রামÑ বিদ্যাবাগিশ, ডাকঘর ও উপজেলাÑ ফুলবাড়ী, জেলাÑ কুড়িগ্রাম; ***উপসহকারী কৃষি অফিসার, উপজেলা কৃষি অফিস, কটিয়াদী, কিশোরগঞ্জ

 


Share with :

Facebook Facebook