কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

সম্পাদকীয় (কার্তিক-১৪২২)

১৬ অক্টোবর। বিশ্ব খাদ্য দিবস। বাংলাদেশে প্রতিবারের মতো এবারও দিবসটি গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হচ্ছে। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য-গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচন ও সামাজিক সুরক্ষায় কৃষি’। প্রতিপাদ্যটির আলোকে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে দেশের দারিদ্র্য নিরসন ও কৃষির উন্নয়নই দিবসটি পালনের মূল উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য।
বাংলাদেশ কৃষিনির্ভর দেশ। তাই দেশের উন্নয়ন করতে হলে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সামাজিক উন্নয়ন ও কৃষির সার্বিক উন্নয়ন আবশ্যক। আমরা জানি, শস্য উৎপাদন ব্যাহত হলে দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। তাই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পূর্বশর্ত হলো শস্য উৎপাদন নিশ্চিত করা। শস্য উৎপাদন বাড়াতে যেসব সমস্যা নিরসনে তৎপরতা চালাতে হবে সেগুলো হলো-আবাদি জমি সংরক্ষণ, চাষাবাদের জন্য উপকরণ সহজলভ্যকরণ, কৃষি শ্রমিকের স্বল্পতাজনিত কারণে প্রযুক্তির বিকাশ নিশ্চিতকরণ, মানসম্মত বীজ সরবরাহ নিশ্চিতকরণ, রাসায়নিক ও জৈবসারের সরবরাহ বাড়ানোর কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, শস্য সংরক্ষণ ও বাজারজাতকরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন, কৃষি পণ্য পরিবহন ব্যবস্থার সংস্কার, শস্য প্রক্রিয়াজাত করার ক্ষেত্রে পদক্ষেপ গ্রহণ। এসব সমস্যা সমাধানে সাফল্য শস্য উৎপাদন বাড়াতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে তা নিঃসন্দেহে বলা যায়। তাই সমস্যা নিরসনের জন্য গবেষণা ক্ষেত্রে তৎপরতা বাড়ানো জরুরি। এ ছাড়া গ্রামীণ দারিদ্র্য নিরসন করতে হলে গ্রামীণ দুষ্ট-চক্রের অবসান ঘটাতে হবে। কারণ একশ্রেণির অসাধু ব্যক্তি সব সময়ই সরকারি কর্মসূচি বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। যেমন- কৃষি উপকরণে ভেজাল দেয়া, কৃষি ঋণ প্রদানে দুর্নীতির আশ্রয় নেয়া, অতিরিক্ত মুনাফায় দাদন ব্যবসায় কৃষি পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ে একচেটিয়া কারবার এসবই সামাজিক দুষ্ট-চক্রের কাজ।

প্রিয় পাঠক ও চাষি ভাইয়েরা, বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে কৃষিকথার চলতি সংখ্যাটিকে বিশেষ সংখ্যা হিসেবে প্রকাশ করা হয়েছে। সংখ্যাটিতে প্রতিপাদ্যের আলোকে বেশ কিছু তথ্যবহুল দিকনির্দেশনামূলক নিবন্ধ প্রকাশ করা হয়েছে। আমরা আশা করি দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে লেখাগুলো বিশেষভাবে অবদান রাখবে। শত ব্যস্ততার মধ্যেও লেখা দিয়ে যারা সংখ্যাটির মান উন্নয়নে সহায়তা করেছেন তাদের জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

বিশ্ব খাদ্য দিবসে গৃহীত কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নে সবাই সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসবেন এটাই আমাদের প্রত্যাশা।


Share with :

Facebook Facebook