কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২০ জুন ২০১৭

শেষ হলো তিনদিনব্যাপি জাতীয় ফল মেলা ২০১৭


প্রকাশন তারিখ : 2017-06-19

 

রাজধানীর খামারবাড়িতে তিনদিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষ রোপণ পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী ২০১৭ শেষ হয়েছে। ‘স্বাস্থ্য পুষ্টি অর্থ চাই, দেশি ফলের গাছ লাগাই’ এ প্রতিপাদ্যে ১৮ জুন ২০১৭ তারিখে পুরষ্কার প্রদানের মাধমে কৃষি মন্ত্রণালয় এ আয়োজন সম্পন্ন করে। ফলদ বৃক্ষ রোপণ পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী ২০১৭ এর  সমাপনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি জনাব মকবুল হোসেন এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) মো. মোশারফ হোসেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ মো. গোলাম মারুফ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হর্টিকালচার উইংয়ের পরিচালক কৃষিবিদ মো. কুদরত-ই-গনী।
ফল প্রদর্শনীতে অংশগ্রহনকারী স্টল, ফলদ বৃক্ষ রোপণ পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী উপলক্ষে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, প্রগতিশীল কৃষক, প্রতিষ্ঠান পর্যায় ও সর্বোচ্চ ফলদ বৃক্ষ রোপনকারী জেলাকে পুরষ্কৃত করা হয়। জাতীয় ফল প্রদর্শনীতে আমসহ বাহারি ফল প্রদর্শনের জন্য স্টল হিসেবে প্রথম স্থান অর্জনকারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরকে ক্রেষ্ট ও সনদ পত্র প্রদান করা হয়। সরকারি স্টল হিসেবে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি)। তৃতীয় স্থান অর্জন করে যৌথভাবে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) ও কৃষি বিপনন অধিদপ্তর (ড্যাম)। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে যথাক্রমে সুপার চেইন শপ আগোরা, স্বপ্ন ও প্রাণ আর আফ এল। ব্যক্তি পর্যায়ে চট্টগ্রামের মো. ওাহিদুল আলম, খাগড়াছড়ির সুজন চাকমা ও খুলনার বাবু অখিল বন্ধুু ঘোষ যথাক্রমে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অর্জন করে। ঢাকা শহরে বাড়ির ছাদে ফল বাগান সৃজনে বিশেষ সফলতার জন্য পুরস্কার পান মিরপুরের মো. মামুনুর রশিদ, ধানমন্ডির সহিদুল কবির, রমনার এস এ জাহান ও মোহাম্মদপুরের নাজ তাহের। প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে খাগড়াছড়ির সজীব এগ্রো ফার্মকে পুরস্কার প্রদান করা হয়।  সর্বোচ্চ ফলদ বৃক্ষ রোপনকারী জেলা হিসেবে পটুয়াখালী, সাতক্ষীরা ও নাটোর যথাক্রমে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অর্জন করে। এবারের মেলায় মোট স্টলের সংখ্যা ছিলো ৭৮টি। কৃষি তথ্য সার্ভিসসহ অংশগ্রহনকারী সকল স্টলকে বিশেষ পুরস্কার প্রদান করা হয়। মেলায় আমের ৬০টির অধিক প্রজাতিসহ প্রায় ১৫২ প্রজাতির ফলের একাধিক জাত প্রদর্শন করা হয়েছে। উল্লেখ্য গত শুক্রবার (১৬ জুন ২০১৭) সকালে আ. কা. মু. গিয়াস উদ্দিন মিল্কী অডিটরিয়াম চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে ফিতা কেটে এ মেলা উদ্বোধন করেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপি।

 


Share with :
Facebook Facebook