কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বিভাগীয় বৃক্ষরোপণ ও বৃক্ষমেলা ২০১৭’র সমাপনী অনুষ্ঠান


প্রকাশন তারিখ : 2017-09-05

সিলেট বন বিভাগ ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেটের উদ্যোগে এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় গত ১৪ ভাদ্র ১৪২৪ বাংলা/ ২৯ আগষ্ট ২০১৭ খ্রি: রোজ মঙ্গলবার সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে ২০(বিশ) দিন ব্যাপী চলা বিভাগীয় বৃক্ষমেলা ২০১৭ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে আসন অলংকৃত করেন কৃষিবিদ ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম, বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জনাব মো. রাহাত আনোয়ার, জেলা প্রশাসক, সিলেট। বিশেষ অতিথির আসন অলংকৃত করেন কৃষিবিদ জনাব মো. সালাহউদ্দিন, জেলা প্রশিক্ষণ অফিসার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, সিলেট; জনাব আর.এস.এম.মুনিরুল ইসলাম, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, সিলেট বন বিভাগ; জনাব শহীদুল ইসলাম চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), সিলেট; জনাব মোঃ মনিরুজ্জামান, পুলিশ সুপার, সিলেট।

 

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা পাঠের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুরু হয়। বিভাগীয় বৃক্ষমেলা/২০১৭ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, বৃক্ষ রোপণ করে কেউ ঠকে না, বৃক্ষ রোপণ করে সম্পদশালী হওয়া যায়। সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে অনেকেই ধনবান হয়েছেন। সরকার বৃক্ষরোপণে অবদানের জন্য জাতীয় পুরস্কার দিয়ে মানুষদের উৎসাহিত করছেন। প্রধানমন্ত্রীর আহবানে তিনি প্রত্যেককে একটি করে ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপণ করার পরামর্শ দেন। চারা শুধু রোপণ করলেই হবে না এগুলোর সঠিক পরিচর্যা করা সবচেয়ে জরুরী বলে তিনি মনে করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন জনাব আর.এস.এম.মুনিরুল ইসলাম, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, সিলেট বন বিভাগ। তিনি বলেন, বিভাগীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা/২০১৭ শুরু থেকে আজ পর্যন্ত মোট ৮৬,৯৪৫ টি বৃক্ষের চারা বিক্রয় করেছেন এ মেলায় আগত নার্সারিগুলো। সিলেট বিভাগে এবছর ৮লক্ষ চারা রোপণ করা হয়েছে। এই বৃক্ষের চারাগুলো রোপণের পাশাপাশি এগুলোর পরিচর্যা করা গেলে এই ছোট বৃক্ষের চারাগুলো একদিন বড় হবে। সিলেট অঞ্চল সবুজে ভরে যাবে।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জেলা প্রশিক্ষণ অফিসার কৃষিবিদ জনাব মো. সালাহউদ্দিন ফল আমাদের শরীরের পুষ্টির বাহক হিসেবে কাজ করে। প্রত্যেকের বাড়িতে কম বেশি ফলের গাছ আছে তবুও আমরা বাজার থেকে বিদেশী ফল ক্রয় করে থাকি। আমাদের ধারণা দেশী ফলের চেয়ে বিদেশী ফলের পুষ্টিমান বেশী। আসলে আমাদের এ ধারণা ভূল প্রমানিত হয়েছে বিভিন্ন গবেষণায়। এই জেলার প্রত্যেক পরিবার যদি তাদের বাড়ির খালি জায়গায় আধুনিক নিয়মে ফলের চারা রোপন করে ফলের চাষ করেন তবে তাদের নিজের পরিবারে পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে আর্থিক ভাবে নিজে তথা দেশের উন্নতি সাধিত হবে।

 

সভাপতির বক্তব্যে সিলেটের জেলা প্রশাসক জনাব মো. রাহাত আনোয়ার বলেন, বৃক্ষ ছাড়া মানুষ বেঁচে থাকার কল্পনা করা যায় না। আমরা যদি বৃক্ষ রোপণ না করে কেটে ফেলি তাহলে আমরা নিজে নিজেকে ধ্বংস করবো। কাজেই জীবনের প্রয়োজনে প্রকৃতির সাথে আমাদের ভালো ব্যবহার করতে হবে। বৃক্ষরোপণ করে আমাদের এ দেশটিকে সবুজে ভরে দিতে হবে। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিষ্ট জনাব আফতাব চৌধুরী; সাংবাদিক ছামির মাহমুদ; নার্সারি মালিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি জনাব কাউসার উদ্দিন চৌধুরী প্রমূখ।

 

সমাপণী অনুষ্ঠানে বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা/২০১৭ এর স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথি সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কৃষিবিদ ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুমসহ অতিথিবৃন্দ। মেলায় আগত নার্সারি মালিকদের হাতে পর্যায়ক্রমে ১ম, ২য়, ৩য় পুরস্কার ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।


Share with :
Facebook Facebook